,



সভাপতি পদপ্রার্থী ওয়ান ইলেভেনের সেই সাদ্দাম

Spread the love

স্বাধীনতাসহ দেশের সব আন্দোলন-সংগ্রামের নেতৃত্বদাতা ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৯তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আগামী ১১-১২ মে। সম্মেলনকে ঘিরে সংগঠনটির নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শীর্ষ পদে জায়গা পেতে এরইমধ্যে পদপ্রত্যাশীরা জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।গণতন্ত্রের আপোষহীন নেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে ওয়ান ইলেভেনের অগণতান্ত্রিক সরকার মূলত সারাদেশ কারারুদ্ধ করতে চেয়েছিল।আর সে সময় মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার মুক্তির দাবীতে রাজপথে নামে ছাত্র সংগঠন। আর সে সময় তেমন’ই একটি ছাত্র সংগঠনের সাথে থেকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে এবং  দেশ রত্ন শেখ হাসিনার  মুক্তির দাবীতে রাজপথে থাকে এস.এইচ.এম শাহ আলম সাদ্দাম। তাছারা ২০০৭ সালে ২১,২২,২৩ আগষ্ট সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিরুদ্ধে রাজ পথে আন্দোলন করেন। শিক্ষক মুক্তি আন্দোলনেও তাঁর অপরিসীম ভূমিকা ছিল।

১/১১এর সময় জননেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তি আন্দোলনে রাজপথে আন্দোলনে অগ্রসৈনিক। ৫ জানুয়ারিতে রাজপথে আন্দোলনে ও সংকটে অগ্রপথিক। ২৯তম জাতীয় সম্মেলনে সভাপতি পদ প্রার্থী  এস .এইচ.এম শাহ আলম সাদ্দাম।

এদিকে, ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ, কেন্দ্রীয় কমিটির সব সদস্য ও প্রতিটি জেলা থেকে নির্বাচিত ২৫ জন কাউন্সিলর কাউন্সিলের প্রতিনিধি হিসেবে গণ্য হবেন। এই কাউন্সিলররা ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই পদ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করেন। কিন্তু এতোদিন এই প্রক্রিয়ায় ‘সিন্ডিকেট’র প্রভাব ছিল অভিযোগ রয়েছে। সেজন্য এবার আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘সমঝোতার ভিত্তিতে সিলেকশনের’ ইঙ্গিত দিয়েছেন।বুধবার থেকেই কেন্দ্রীয় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের জন্য মনোনয়নপত্র বিতরণ শুরু হয়েছে। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময় ছিলো ৫ মে রাত ৮টা পর্যন্ত।

ছাত্রলীগের শীর্ষ পদপ্রত্যাশী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস.এইচ.এম. শাহ আলম সাদ্দাম বলেন, ‘দীর্ঘ দিন ধরে ছাত্রলীগের জন্য পরিশ্রম করেছি। এবার শীর্ষ পদের জন্য নিজের আবেদন জমা দিয়েছি। পারিবারিক বংশ-পরিচয় দেখে নতুন নেতা নির্বাচন করা হোক। আমি আশাবাদি সততা সত্যতা এবং নিরবতা প্রতিষ্ঠা পাবে।

অারো খবর