,



প্রধানমন্ত্রী মনোনয়ন দিলে না বলার সুযোগ নেই : মাশরাফির বাবা

Spread the love

নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা নড়াইল থেকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেন। মঙ্গলবার ঢাকায় একনেকের বৈঠকের পর সাংবাদিকদের একথা বলেন পরিকল্পনামন্ত্রী  আ.ফ.ম মোস্তফা কামাল।

তিনি বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নড়াইল থেকে অংশ নিতে পারেন মাশরাফি। সে একজন ভালো ছেলে। তার জন্য ভোটও প্রার্থনা করেছেন। তবে কোন আসন থেকে তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেন তা তিনি বলেননি।

বিষয়টি নিয়ে নড়াইলের বিভিন্ন প্রান্তে চলছে আলোচনা-সামালোচনা। দুপুরের পর থেকে এ বিষয়টি ছিল মানুষের মুখে মুখে। এ ব্যাপারে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মধ্যে পক্ষে-বিপক্ষে প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

এদিকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার বিষয়টিকে ইতিবাচক ভাবে দেখছেন নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের প্রধান উপদেষ্টা এবং মাশরাফির বাবা গোলাম মুর্তজা। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি তাকে মনোনয়ন দেন তাহলে মাশরাফির না বলার সুযোগ নেই।

নড়াইল সদর উপজেলা দলিল লেখক সমিতির সাবেক সভাপতি শহিদুল হক মোল্যা মাশরাফিকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, যদি মাশরাফি মনোনয়ন পান তবে তিনি এমপি এবং মন্ত্রী হবেন। ফলে অবহেলিত নড়াইলের সার্বিক উন্নয়ন সংঘটিত হবে।

নড়াইল পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নড়াইল সম্মিলতি সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মলয় কুন্ডু বলেন, মাশরাফি একজন সৃজনশীল ও ভালো মানুষ। সে বিভিন্ন সময় সাধারণ মানুষের উপকার করে থাকে, যা অনেকেই জানে না। সে যদি মনোনয়ন পায় তাহলে আশা করি জেলার সার্বিক উন্নয়ন তরান্বিত হবে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু বলেন, নড়াইলের দু’টি আসনের যে কোনো একটি থেকে আমি মনোনয়ন পাব বলে আশাবাদি। মাশরাফির মনোনয়নের ব্যাপারে বলেন, এটা দলীয় সিদ্ধান্ত।

অন্যদিকে খেলার মাঠের মাঠের জনপ্রিয়তা আর রাজনীতির মাঠের জনপ্রিয়তা এক নয় বলে মনে করে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টরা। তাদের মতে মাশরাফি যখন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিবেন তখন সে আওয়ামী লীগের লোক হিসাবেই ভোটারদের কাছে পরিচিত হবেন ভোটের মাঠে। সে ক্ষেত্রে আওয়ামী বিরোধী রাজনৈতিক দলের অনেকে তাকে খেলার মাঠে ভাল বাসলেও রাজনীতির মাঠে পছন্দ নাও করতে পারেন।

অারো খবর