,



শাওন রহমার- লেখক

তরুনদের তারুন্য কথন-শাওন রহমান

Spread the love

যে কোন জাতির জন্যই তরুনরা মূল্যবান সম্পদ । দেশের সার্বিক উন্নয়নে তরুনদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্ত্বর্পূর্ন।যে জাতি তার তরুন সমাজ কে নৈতিক জ্ঞানগত দিক দিয়ে দক্ষ করে তুলতে পারে সে জাতির উন্নয়নের সম্ভাবনা তত বেশী।

পৃথিবীর অন্য যে কোন জাতির তুলনায় বাংলাদেশর অগ্রগতির সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশী।কারন আমাদের রয়েছে বিশাল তরুন সমাজ।তাদের কী আমরা যথাযথ ভাবে গড়ে তুলতে পারছি? আমরা কি তাদের মাঝে জ্ঞানগত ,নৈতিক, মানসিক, সুস্থ্য চিন্তাধারার যথাযথ কিছু দেখতে পাচ্ছি?
আমাদের তরুনদের নিয়ে আমরা আশাবাদী। কিন্তু সেই তরুনদের তারুন্য যদি উজ্জ্বল করা সম্ভব না হয় ! তবে তো আশার গুরে বালি ।বড্ড দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে যেমন একাংশ তরুন তাদের তারুন্য’কে উজ্জ্বর করছে । ঠিক তেমনি ভাবেই আরেকঅংশ তরুন-তরুনী’রা নিজেদের ভুলের তৈরী পথে হেঁটে তারুন্য নষ্ট করছে । কথাটার একটু বিশ্লেষন না করলেই নয় । ইদানিং দেখা যাচ্ছে প্রযুক্তির সাথে তাল মিলিয়ে আসা সামাজিক যোগা-যোগ মাধ্যম গুলোর প্রতি তরুন-তরুনী’রা পর্য়াপ্ত ঝুকে পরেছে । পড়া-শুনার কথা প্রায় ভুলতেই বসেছে সেই সকল তরুন-তরুনীদের একাংশ । আবার খোঁজ নিয়ে দেখা যাচ্ছে পরিবারেও তাদের সাথে সম্পরর্ক খারাপ যাচ্ছে । তোরা পড়াশুনায় ফাঁকি দিয়ে অধিকাংশ সময় পার করছে ফেসবুক,টুইটার,হোয়াটস এপ,ইনস্টাগ্রাম সহ নানা সামাজিক প্রযুক্তিগত সাইট গুলোতে । ফলে পিতা-মাতার অভিযোগ সন্তানরা তাদের কথা শুনে না । কখনো কখনো তারা অতিরিক্ত উত্তেজিত হয়ে একপ্রকার ভুলেই বসে তার আচরনে কিছু অপমান গ্রস্ত শব্দ উচ্চারন করছে যা পিতা-মাতার  সাথে যায় না ।
প্রযুক্তির সাথে তাল মিলিয়ে থাকাটা অন্যায় নয়,কিন্তু মনে রাখতে হবে টেযেন পরিবারে এবং পড়াশুনায় কোন রকম খারাপ প্রভাব না পরে ।

প্রতিটি তরুনদের মাঝে কিছু ভিন্ন আলোকিত স্বপ্ন ইচ্ছা কিংবা উদ্যেগ থাকা প্রয়োজন। এবং প্রতিটি তরুন-তরুনিদের মাঝে থাকা চাই পরিবারের বড়দের প্রতি অগাধ শ্রদ্ধা ও নিজ পরিবারের প্রতি  প্রকৃত ভালোবাসা । আমাদের ভুলে গেলে চলবে না,আজ পিতা-মাতা অামাদের এই সুন্দর পৃথিবীতে নিয়ে না আসলে,আমরা আমাদের অন্যান্য প্রিয় বন্ধুদের পেতাম না ।দেখতে পেতাম না এই সুন্দর পৃথিবীর রূপ । কত আনন্দই না আমাদের’ই তারুন্যিক জীবনে!! আর এই সকল কিছু দিয়েছে আমাদের পিতা-মাতা । তাই তারাও আমাদের নিয়ে কিছু স্বপ্ন দেখেন আর সেই স্বপ্ন পূরনের দ্বায়িত্ব আমাদের তরুনদের । অতেএব সকল খারাপ’কে না বলি এবং সকল ভালো কে হ্যা বলি ।

এই দেশ ও আমাদের জন্মদাতা, তাই এই দেশকে একটি আলেকিত সমাজ উপহার দেয়ার দ্বায়িত্ব আমাদের নিজেদেরই । প্রিয় তরুন বন্ধুরা আসো আমরা আমাদের তারুন্যকে উজ্বল করি ।

আলোকিত তারুন্যে চাই সততা,সত্যতা ও নিরবতা।থাকা চাই প্রবল স্বপ্নের প্রকৃত ইচ্ছা ও উদ্যেগ ।

অারো খবর